1. bnews786@gmail.com : bdtv.press :
  2. bdtvbd20@gmail.com : Hasan Sha : Hasan Sha
সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৫৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
নোয়াখালীর চরজব্বর থানার (এএসআই) নাজিম উদ্দিন জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার । ২য় বাংলাদেশ রেডিয়েল লাইভ ২০২০ (ভারচুয়াল) অনুষ্ঠানের উদ্বোধন। মহিপাল হাইওয়েতে অবৈধ কার স্ট্যান্ড, নিরবে চলছে চাঁদাবাজি। মৃত,অসচ্ছল ত্যাগী নেতা কর্মীদের পাশে – ওবায়দুল কাদের। গানের দৃশধারণের মধ্য দিয়ে ‘চিতকার’ এর শুটিং শেষ লক্ষ্মীপুরে স্কাউটস এর দল গঠন ও উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত। নোয়াখালীতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বালু উত্তোলনের অভিযোগ। নোয়াখালীতে ছিনতাই চক্রের ৫ সদস্য আটক। সোনাইমুড়ীতে গৃহবধুর মরদেহ উদ্ধার। বেগমগঞ্জে দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা সি এন জি চালকের বিরুদ্ধে মামলা।
শিরোনাম
নোয়াখালীর চরজব্বর থানার (এএসআই) নাজিম উদ্দিন জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার । ২য় বাংলাদেশ রেডিয়েল লাইভ ২০২০ (ভারচুয়াল) অনুষ্ঠানের উদ্বোধন। মহিপাল হাইওয়েতে অবৈধ কার স্ট্যান্ড, নিরবে চলছে চাঁদাবাজি। মৃত,অসচ্ছল ত্যাগী নেতা কর্মীদের পাশে – ওবায়দুল কাদের। গানের দৃশধারণের মধ্য দিয়ে ‘চিতকার’ এর শুটিং শেষ লক্ষ্মীপুরে স্কাউটস এর দল গঠন ও উদ্বুদ্ধকরণ সভা অনুষ্ঠিত। নোয়াখালীতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বালু উত্তোলনের অভিযোগ। নোয়াখালীতে ছিনতাই চক্রের ৫ সদস্য আটক। সোনাইমুড়ীতে গৃহবধুর মরদেহ উদ্ধার। বেগমগঞ্জে দ্বিতীয় শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা সি এন জি চালকের বিরুদ্ধে মামলা।

হ্নীলা মরিচ্যা ঘোনার ফাইসাল যখন ইয়াবা ব্যবসায়ী থেকে বিএনপির সভাপতি

  • আপডেট: মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৬ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

হ্নীলা মরিচ্যা ঘোনার ফাইসাল যখন ইয়াবা ব্যবসায়ী থেকে বিএনপির সভাপতি ও রাজমিস্ত্রি থেকে ইয়াবা ডন, বনে গেছে কোটি টাকার মালিক, আসল রাজনীতিবীদরা বিফাকে। সিনহা হত্যা নিয়ে সাঁড়াশি মাদক বিরোধী অভিযান না থাকলেও একাদিক এলাকায় ইয়াবা ব্যবসায়ীরা প্রকাশ্যে ঘুরাঘুরি করছে। যারা তাদের তৈরী করা রাজপ্রসাদের মত বাড়ী ছেড়ে পালিয়েও গিয়েছিল তারা ও এখন কৌশলে নেতার বা দলিয় পদে অধিন হতে মরিয়া । স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তালিকা ভুক্ত ইয়াবা ফায়সাল (৩০) এখন বিএনপি নেতা। সে হ্নীলা মরিচ্যা ঘোনার মৃত ফজল করিমের পুত্র। সুত্র জানায়, দুই তিন বছর আগেও সে ছিল দিন মুজুর। জীবন চলার পথে কোন এক সময় তাকে মরণ নেশা ইয়াবা গ্রাস করে। টেকনাফের বন্দুক যুদ্ধ, ইয়াবা ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানে রাষ্ট্রপ্রধান মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি কোনটাই তার কাছে বোধগম্য নয়। নিয়মিত চালু রেখেছে রমরমা মাদক ব্যবসা। গ্রাম থেকে শহরে তাহার বিলাসবহুল বাড়ির দৃশ্য যে এক রূপকথার গল্প তা প্রশাসন সহ সকলে জানে । স্থানীয় জনসাধারন জানায়, ফায়সালের একজন প্রকৃত ইয়াবা ব্যবসায়ি, তাহার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন পত্রিকায় বা সংবাদ জগতে বড় বড় শিরোনাম হলেও তা কোন তোয়াক্কাই করে না। কারণ তিনি সব সময় টাকা পয়সা দিয়ে কিছু ব্যক্তিদের ম্যানেজ করার ক্ষমতা রাখেন। ইসলামি ফাউন্ডেশন কর্তৃক নির্ধারিত টেকনাফের সকল মসজিদে গতানো গতিক ইমামদের জুমার নামাজে মাদক নিয়ে আলোচনা করতে নির্দেশ দেন, যখন ইমাম জুমায় বলেছেন, আপনারা ইয়াবা ব্যবসা করবেন না, মদ পান করবেন না, ইয়াবা বিয়ারী বাড়িতে দাওয়াত খাবেন না, এই টা ইসলামের ধর্মীয় হারাম, তখন ২/৩ দিন পর মসজিদের ইমাম কে ইয়াবার ডন ফায়সাল হামলা করেন । পরে কোন প্রতিকার না পেয়ে ইমাম অসহায় হয়ে মসজিদের চাকরী ছেড়ে দিয়ে নিজ মরিচ্যা ঘোনা এলাকা থেকে এখন লেদায় গিয়ে মসজিদে চাকরী করছেন বলে জানাগেছে। ইয়াবা ব্যবসায়ী ফয়সাল, এভাবে আরও অনেক মানুষকে নির্যাতন করেছে বলে ব্যাপক অভিযোগ রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কোন বাধা বিপত্তি আসলে তারা টাকার বিনিময়ে সব নিয়ন্ত্রণ করে ফেলে। তাই এলাকায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথাও বলতে পারেনা। তার ঘরের বাথ রুমের সাথে বিশাল সুড়ঙ্গ প্রকাশ পেয়েছে। এরপর আইন শৃংখলা বাহিনী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সত্যতাও পায়। তারপরেও কি অদৃশ্য কারণে ব্যবস্থা নিচ্ছে না পুলিশ তা ভাবিয়ে তুলেছে এলাকাবাসীকে। এই ফয়সালের রয়েছে গাড়ি-বাড়ি, কক্সবাজার শহরের আপন টাওয়ারের সামনে হোটেল প্রিন্স নামে হোটেল, চট্টগ্রামে হরেক রকমের ব্যবসা ও এলাকায় রয়েছে এদের বিপুল জায়গা-জমিসহ নামে বেনামে সম্পত্তি যাহার যাদুঘরি পেছনে ইয়াবা ।এছাড়া কক্সবাজার লিংক রোডসহ আরও কয়েকটি এলাকায় রয়েছে বেশ কয়েকটি ভবন।
তিনি এখন ইয়াবার টাকা দিয়ে দলিয় সংগঠন বিএনপি টেকনাফ উপজেলা নেতা হওয়ার জন্য কক্সবাজার জেলা থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত টাকা দিয়ে কাজ করতেছে শুনা যাচ্ছে। যাহার প্রমান হ্নীলা ইউনিয়ন সাংগঠনিক ১নং ওয়ার্ডে সম্মেলন ও কাউন্সিল করার সময় যে নেতা কর্মীদের গরু জবে করে ভোজের আয়োজন করান তাহাও ইয়াবা ডন ফাইসাল এর অবৈধ টাকা। স্থানীয় প্রবীণ বিএনপি নেতারা বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে দলের জন্য মামলা খেয়েছি, নির্যাতনের শিকার হয়েছি তা সব ইয়াবার টাকার কারণে ব্রিতা হয়েগেছে । হটাৎ করে ইয়াবা ডন ফাইসাল করিম টাকা দিয়ে কমিটি নেওয়ার জন্য ও দিকে সেদিকে ছুটে আসে। শুধু তা নয় গত কয়েক দিন আগে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান চালিয়ে মরিচ্যা ঘোনায় ডন ফায়সাল এর আত্মীয় আনোয়ারা বেগমের বসত ঘর হতে ৬০০ পিস ইয়াবা ও মাদক জব্দ করা হয়।ঘটনাস্থল হতে আনোয়ারা বেগম (৫৫), স্বামী সৈয়দ হোসেন, আটক করা হয়, অভিযানের তার পেয়ে আনোয়ারা বেগমের ছেলে সাদ্দাম পালিয়ে যায়।
স্থানীয়রা বলেছেন , টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন যদি ইয়াবার ডন ফায়সাল করিম কে গ্রেফতার করতে পারে তাহলে অধিকাংশ নিয়ন্ত্রণে আসবে মনে করেন স্থানীয়রা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
এই ওয়েবসাইটের লেখা, ছবি, ভিডিও
অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
নির্মাতা বিডি